Blog

Buyer Conversion

কিভাবে ম্যানেজ করবেন মহিলা বায়ার?

নারীরা সব সমই হন মহীয়সী। তারা কোমল, ভালোবাসার প্রতিকৃতি, আদর এবং দায়িত্বর জলজ্যান্ত প্রমান।
কিন্তু এই নারী ই যখন আপনার জন্য বায়ার হয়ে আসেন ফাইভার, আপওয়ার্ক কিংবা অন্য কোন মার্কেটে, উপরে বর্ণিত রুপ গুলি সব সময় তাদের মাঝে দেখতে পাওয়া যায় না, উপরন্তু অনেক ক্ষেত্রেই এগুলির উলটো টা দেখা যায়।
সো, কিছু কাজ জেগুলি করতে হবে, কিংবা করা থেকে বিরত থাকতে হবে, আপনার ক্লায়েন্ট যদি মহিলা হয়। ওয়েল, ক্লায়েন্ট ভেদে এগুলি কিছু পরিবর্তন পরিবর্ধন হতে পারে তবে বেসিক গুলি একি থাকবে…
সবার সুবিধার্থে পোস্ট টি শেয়ার করুন। নিজে জানুন, আর বন্ধু দের জানার সুযোগ করে দিন। কারণ এভাবেই গোড়ে ওঠে একটি পজিটিভ সামাজিক কমিউনিটি।

১। তাদের সাথে পোলাইট থাকুন। মানে নম্র, ভদ্র, কিন্তু বেশি তেল মারা যাবে না, তাতে হিতে বিপরিত হতে পারে।

২। তাদের কি বলবেন সেটা মনে রাখবেন, দরকার হলে লিখে রাখবেন এবং সেই মত কাজ করবেন। কারণ তারা প্রত্যেকটা কথা মাথায় সুঁই এর মত গেথে রাখে।

৩। যোগাযোগ। কাজ চাই ১ দিনের হোক আর ১০ দিনের। তাদের সাথে যোগাযোগ করবেন প্রত্তেকদিন। ঠিক জেভাবে নিজের গালফ্রেন্ড কে সকালে উঠে মেসেজ করেন “জান উঠছ, খাইছ,” টাইপ। (ক্লায়েন্ট কে জান বলা তো দুউর, ভুলেউ জিএফ এর মত ট্রিট করবেন না)। আমার ক্লায়েন্ট এর ৩ তারা দেয়ার অজুহাতের একটা ছিল আমি তার সাথে যোগাযোগ করিনি। কাজ টা ছিল ৩ দিন এর। প্রথম দিন সব বুঝে নিয়ে কাজ শুরু করি, মাঝে আর অনেক কাজ করি, পরের ২ দিন হাই হেলো বলা হয়নাই। ৩য় দিন তাকে কাজ জমা দেই, তার পছন্দউ হয়। তখন কিছু বলেনাই। ৩ তারা দেয়ার পর কেন দিল আস্ক করায় বলে তুমি মাঝের ২ দিন কোন যোগাযোগ কর নাই কেন? লে হালুয়া…

৪। শুধু মহিলা না, সব ক্লায়েন্ট দের খেত্রেই এটা ভ্যালিড, আর তা হল কাজ শুরু করার আগে কি কাজ, কেমন কাজ, টাকা পয়সা সব জাস্টিফাই করে নিন। ইভেন কাজ এর সোর্স ফাইল দেবেন কি দেবেন না সেটাউ ক্লিয়ালি বলে দিন। গিগ এ লেখা থাকলেউ অনেকে আছেন এটা নিয়ে অনেক ঝামেলা পাকান কাজ শেষ করে। তাই সে কি চায়, তা আপনি পারবেন কিনা, কতো দিনে তা করবেন, কি ভাবে করবেন, তার সাথে সম্ভাব্য স্যাম্পল দিয়ে কাজ নেয়ার আগে ক্ল্যারিফাই করে তার পরেই কাজ টা হাতে নিন। দরকার হলে বলুন বেশি ক্লিয়ার হলে ফাস্ট কাজ করে কুয়ালিটি সার্ভিস দিতে পারবেন। তাকে কনভিন্স করুন নানান পসিটিভ ভাবে। তবে তার রুপের প্রশংসা করতে যাবেন না। অনলাইনে বায়ার দের সাথে শুধু কাজ রিলেটেড কথাই বলুন।

৫। মহিলা বায়ার দের সাথে খুব আন্তরিক হওয়ার দরকার নেই। আবার খুব প্রফেশনাল আচরণ ও দেখাবেন না। ক্যাজুয়াল থাকার চেষ্টা করবেন। কারণ বেশি আন্তরিক হলে তারা সেটাকে ফ্লারটিং হিসেবে ধরে নিতে পারে, কিংবা সেটার সুযোগ নিয়ে বেশি কাজ চাওয়ার একটা টেন্ডেন্সি লক্ষ্য করা যায়। আবার বেশি ফরমাল হলে সেই ফরমালিটি বুঝে কাজ করতে তাদের জন্য অনেক ক্ষেত্রেই মুশকিলতার মুখোমুখি হতে হয়। তাই আচরণ করবেন নরমাল। যতটুকু না করলেই নয়।

৬। মহিলা ক্লায়েন্ট Flirt Content নয়। ব্যপার টা মাথায় রাখবেন। আমাদের বাংলাদেশ এর ছেলেদের নারীদের প্রতি সব সময় ই বিশেষ দুর্বলতা প্রকাশিত হয়। এটা হয়তো অন্য দেশের মানুষের ও হয় তবে আমাদের মতো মেয়েদের প্রতি অভার এক্টিভ জাতি মনে হয়না আর নেই। এমনকি দেখা যায় অনেকে বায়ার কে বিয়ে করে বিদেশে স্যাটেল হওয়ার প্ল্যান ও করে থাকেন। তবে বলতে চাই ভাই থামেন। বিদেশি আডাল্ট মুভি গুলিতে যা যা দেখানো হয়, দুনিয়ার সব বিদেশী রা আসলে তেমন হয়না! তাই অনলাইনে সচেতন থাকুন আপনার ব্যাবহারে, বিশেষ করে মহিলা বায়ার দের সাথে কারণ তার সাথে ব্যাবহারের উপর নির্ভর করছে আপনার আইডি, বর্তমান ও পরের কাজ পাওয়ার সম্ভাবনা।

৭। মহিলা ক্লায়েন্ট কে কখনো কোন কারনে দোষ দেয়া যাবে না। যেমন সে যদি তার কোন প্রব্লেম এর কারনে আপনাকে রিপ্লায় দিতে নাউ পারে, সেটা তার দোষ না, সেটা আপনার দোষ, কারন আপনি তাকে তার ফ্রি সময় নক করেন নাই। এটা পুরাই আপনার দোষ, আর সেটা স্বীকার করে নিন। তবে সব কাজের ক্ষেত্রে নিজের দোষ স্বীকার করার দরকার নাই। সেই ক্ষেত্রে লজিক দিয়ে তাকে প্রবলেম গুলি বুঝান। এখন হস্টিং এর কারণে মহিলা বায়ার এর সাইট ডাউন হলে সেই দোষ নিজের বলে স্বীকার করতে যাবেন না। তাহলে হয়তো বেশি স্বীকারোক্তির দায়ে কাজ টাই হারাবেন।

৮। মহিলা রা কমপ্লেইন করতে খুব পটু। হোক সেটা বাস্তব জীবনে কিংবা ফাইভার এ। তাকে কোন ভাবেই অভিযোগ করার সুজগ দেবেন না।

৯। যদি বায়ার অন্য দেশের হয় (নন ইউএস) তার ইংলিশ বুঝতে না পারলে কখনো বলবেন না সেটা ক্লিয়ার করে বলতে। তাতে সে নিজেকে ছোট মনে করে। তাকে বলুন আপনি নন ইউএস আর আপনার ইংলিশ ততো টা ভাল নয়, সো যদি একটু ইজি করে ব্যাপার টা এক্সপ্লেইন করে তো আপনার জন্য সেটা বুঝতে ভাল হয়।

১০। কাজ ডেলিভার করার আগে অনেক ভাল ভাবে জেনে নিন যে সে এই কাজ টাই চাচ্ছে কিনা। এটা তাকে এশিওর করেন যে চাইলে আপনি তাকে মডিফিকেশান করে দেবেন, নো প্রব্লেম, সে চাইলে যে কোন চেঞ্জ এর জন্য বলতেই পারে। নয়ত কাজ শেষে যদি কিঞ্চিৎ পরিমান ও সংশয় থাকে, তো সে সেটা রেটিং এর উপরে ঝাড়বে।

আসলে সব মহিলা বায়ার এরকম নয়। তবে মেয়ে রা সাধারনত খুতখুতে সভাবের হয়। তারা অধিকাংশ সময় জানে না তারা কি চায়। সো, তাকে বার বার কাজের এর বেপারে জানতে চাইলেউ সে বিরক্ত হতে পারে। তাই যা জিজ্ঞেস করার, কাজ নেয়ার আগেই করে ফেলা ভাল। কাজ নেয়ার পরে বিরক্ত হলে রেটিং এর নানান জায়গায় সে তারা কমিয়ে ফেলবে।

সবার সুবিধার্থে পোস্ট টি শেয়ার করুন। নিজে জানুন, আর বন্ধু দের জানার সুযোগ করে দিন। কারণ এভাবেই গোড়ে ওঠে একটি পজিটিভ সামাজিক কমিউনিটি।

Admin bar avatar

Sabbir Hossin

Sabbir Hossin is the founder of Skill Care & Athoi Sabbir YouTube Channel. His classes are always information-rich, tightly scripted, and visually interesting. (Not your one plain slide class!). He is currently employed as a graphics designer at T-Mobile Company and is also working at Freelancing Marketplace.

1 comment

  1. Thanks a lot for your good instruction. I am waiting for your next post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *